এক ঝাঁকুনিতেই মসজিদ ফুল…

abdullah vaiএম আবদুল্লাহ: আলহামদুলিল্লাহ। আরেকটি বড় বিপর্যয় থেকে আল্লাহ আমাদের হেফাজত করেছেন। মনে হচ্ছিল গোটা বিল্ডিংটা হাতের তালুতে নিযে দোলাচ্ছে কেউ । লাফিয়ে উঠে বারান্দায় গিয়ে দেখি আশপাশের ভবন থেকে মানুষ দৌঁড়ে নামছে। একটি ভবনের জানালার কাঁচ ভেঙ্গে পড়ার আওয়াজ পাওয়া গেল।

এত বড় ঝাঁকুনি স্মরণকালে দিয়েছে বলে মনে পড়ছে না। আর এই ঝাঁকুনির ফল দেখলাম মসজিদে। ফজর নামাজে সম্ভবত এই প্রথম মহল্লার আত-তাকওয়া জামে মসজিদ ভরে গেল। প্রতিদিন বড় জোর দুই কি তিন কাতার হতো।
নামাজের পর ইমাম সাহেব সংক্ষিপ্ত বয়ানে কেয়ামতের আলামতগুলো জানিয়ে এখনই সবাইকে সতর্ক হওয়ার আহবান জানালেন।

সুরা আর রাহমানের সেই আয়াতটি বললেন- ‘কুল্লুমান আলাইহা ফা..ন। ওয়া ইয়াবক্বা ওয়াজহু রাব্বিকা যুলজ্বালালি ওয়াল ইকরাম। ফাবি আয়্যি আলায়ি রাব্বিকুমা তুকাযযিবান। অর্থাত- দুনিয়ার সব কিছু ধ্বংস হয়ে শুধু অবশিষ্ট থাকবে তোমার প্রতিপালকের সত্বা ও গৌরবময় আধিপত্য। অতএব তোমরা প্রতিপালকের কোন কোন নিয়মতকে অস্বীকার করবে?

বললেন-এক ঘণ্টা আগে সবাই মারা যেতে পারতাম। আল্লাহ সুযোগ দিয়েছেন, তার দিকে ফেরার এখনও সময় আছে।
আল্লাহ আমাদের সবাইকে হেফাজত করুন।

লেখক: বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের মহাসচিব