শিশু যৌন নির্যাতনে বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী অভিযুক্ত

001নিউজ ডেস্ক: জাতিসংঘ প্রথমবারের মতো মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্রে শিশুদের যৌন নির্যাতনের সাথে জড়িত শান্তিরক্ষীদের জাতীয়তা প্রকাশ করেছে।

এই সন্দেহভাজনেরা এসেছে বাংলাদেশ, গণতান্ত্রিক কঙ্গো প্রজাতন্ত্র, নিজার এবং সেনেগাল থেকে।

নিউইয়র্কে এক সংবাদ সম্মেলনে জাতিসংঘের সহকারী মহাসচিব অ্যান্থনি ব্যানবেরি কান্নাজড়িত কণ্ঠে যৌন নির্যাতনের নতুন অভিযোগগুলো ঘোষণা করেন।
তিনি বলেন, এই সমস্যা মোকাবেলায় সম্ভাব্য সবকিছুই করা হচ্ছে।

সবমিলিয়ে আট সেনা ও দুই পুলিশের বিরুদ্ধে বিরুদ্ধে অপ্রাপ্ত বয়স্কদের ওপর যৌন নীপিড়ন চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে নাইজারের চার সেনা, বাংলাদেশের দুই সেনা, মরেক্কো ও কঙ্গোর এক সেনা এবং সেনেগালের দুই পুলিশ রয়েছে।

গতবছরের জানুয়ারি থেকে অক্টোবরের মধ্যে ওই যৌন নির্যাতনের ঘটনাগুলো ঘটেছিল বলে জাতিসংঘ মহাসচিবের সহকারী টনি বানবুরি জানিয়েছেন।

মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্রে জাতিসংঘ মিশনে অংশ নেয়া মোট ২২ সেনা ও পুলিশের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়ণের অভিযোগ ওঠেছিল। প্রাথমিক তদন্ত শেষে এদের আট জনের অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে বলে দাবি করেছেন টনি বানবুরি। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জাতিসংঘ মিশনে অংশ নেয়া যে ৬৯ জনের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ ওঠেছিল ওই আটজন তাদেরই অংশ।

বিভিন্ন দেশে লড়াইয়ে অংশ নেয়া ইউরোপীয় ইউনিয়নের সেনাদের বিরুদ্ধে এ জাতীয় অভিযোগ ওঠার পরই জাতিংঘ মিশনের সেনাদের এ কেলেঙ্কারি প্রকাশিত হয়।

মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্রে জাতিসংঘ এবং ইউরোপীয় শান্তিরক্ষীদের বিরুদ্ধে শিশুদের যৌন নির্যাতনের অভিযোগ নিয়ে অনেকটা হিমশিম খাচ্ছে জাতিসংঘ।

গতমাসে এসব যৌন নির্যাতনের অভিযোগের বিষয়ে জাতিসংঘের প্রতিক্রিয়াকে মারাত্মকভাবে ত্রুটিপূর্ণ হিসেবে বর্ণনা করে একটি স্বাধীন প্যানেল।

সূত্র: বিবিসি