শিরোনাম :

  • সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

‘৬ ঘণ্টা কর্ম’ দাবি না মানায় ইবি কর্মকর্তাদের হুঁশিয়ারি

নিজস্ব প্রতিবেদক: সকাল ৮টা হতে দুপুর ২টা পর্যন্ত ৬ ঘণ্টা কর্মসহ ৩ দফা দাবিতে দিনব্যাপী কর্মবিরতি পালন করেছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) কর্মকর্তা সমিতি। ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে দাবি মেনে না নিলে অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতি পালন করার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তারা।     
              
সোমবার (২ সেপ্টেম্বর) সকাল থেকে প্রশাসন ভবনের সামনে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় কর্মকর্তা সমিতির মহাসচিব ও ইবি কর্মকর্তা সমিতির সাধারণ সম্পাদক মীর মোর্শেদুর রহমান এর সঞ্চালনায় কর্মসূচিতে এ হুঁশিয়ারি দেন সমিতির সভাপতি শামসুল ইসলাম জোহা। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কার্যক্রমে স্থবিরতা দেখা দিয়েছে।

দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত উপ-রেজিস্ট্রার বা সমমানদের বেতন স্কেল ৫০ হাজার টাকা (গ্রেড-৪), সহকারী রেজিস্ট্রার বা সমমানদের বেতন স্কেল ৩৫ হাজার ৫ শত টাকা(গ্রেড-৬), অফিস সময়সূচি পূর্বের ন্যায় সকাল ৮ টা হতে দুপুর ২ টা পর্যন্ত নির্ধারণ এবং চাকরির বয়সসীমা ৬০ বছরের পরিবর্তে ৬২ বছর বহাল রাখার দাবি করেছেন।

রেজিস্ট্রার সূত্রে জানা যায়, উল্লেখিত দাবির মধ্যে দুটি দাবি মেনে নেয়া হয়েছে। ২৪৩ তম সিন্ডিকেট সভায় গঠিত রিভিউ কমিটির প্রতিবেদন গত ৩১ আগস্ট অনুষ্ঠিত ২৪৬ তম সিন্ডিকেট সভায় বেতন স্কেল প্রদানের জন্য সুনির্দিষ্ট নীতিমালা প্রণয়নের জন্য ৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। এবং চাকরির বয়স ৬২ বছর দাবিটি সিন্ডিকেটে সুপারিশ করা হয়েছে এবং মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে প্রেরিত হয়েছে।

এছাড়া বেতন স্কেলের বিষয়ে গত ৩১ আগস্ট ২৪৬ তম সিন্ডিকেট সভায় যে সিদ্ধান্ত হয়েছে সে বিষয়ে সমিতির নেতৃবৃন্দকে অবহিত করার লক্ষ্যে অদ্য বিকেল ৪ টায় উপাচার্য অফিসে মিটিং ডাকা হয়েছে বলে জানিয়েছেন রেজিস্ট্রার এসএম আব্দুল লতিফ।       

উপাচার্য অধ্যাপক ড. রাশিদ আসকারী বলেন, সরকারি বিধিবিধানকে সমুন্নত রেখে কর্মকর্তাদের দাবির প্রতি আমি সম্পূর্ণ সহানুভূতিশীল। চাকরির বয়স ৬২ বছর দাবিটি সিন্ডিকেটে সুপারিশ করা হয়েছে এবং মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে প্রেরিত হয়েছে। বেতন স্কেলের দাবিটিও বাস্তবায়নের জন্য সিন্ডিকেট কর্তৃক গৃহীত হয়েছে এবং বাস্তবায়নের নীতিমালা প্রণয়নে কমিটি গঠন করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত বছরের ২২ ডিসেম্বর উক্ত দাবিতে মৌনমিছিল করেছিল কর্মকর্তারা এবং এ বছরের ৩ মার্চ ৩ দিনব্যাপী কর্মবিরতি ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছিল তারা