শিরোনাম :

  • মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০২১

ইসলাম ও বাংলাদেশের প্রচলিত আইনের দৃষ্টিতে ধর্ষন।

নিউজ ডেস্কঃ সাম্প্রতিককালে বহুল আলোচিত শব্দ হচ্ছে ধর্ষন।ধর্ষন সমাজে বর্তমানে একটি ভয়াবহ সামাজিক ব্যাধিতে রূপ নিয়েছে। বিকৃত মস্তিষ্ক নৈতিকতার অবক্ষয়েরর ফলে প্রতিনিয়ত ঘটছে ধর্ষনের মত ঘটনা।
আসুন জেনে নেয়া যাক ইসলাম ও বাংলাদেশের প্রচলিত আইনের দৃষ্টিতে ধর্ষন কি?
ইসলাম ধর্ষন কে যিনা শব্দে উল্লেখ করেছেন।যিনা সুস্পষ্ট  হারাম,শিরক এবং হত্যার পর বৃহত্তম অপরাধ।ইসলাম ধর্ষণকে ভিন্নভাবে সংজ্ঞায়িত করেনি। বরং বিবাহবহির্ভূত যেকোনো যৌন সম্পর্কই ইসলামে অপরাধ হিসেবে গণ্য। ফলে ব্যভিচারী ও ধর্ষক উভয়ের জন্যই কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করেছে ইসলাম।ইসলামী আইনশাস্ত্র মোতাবেক ধর্ষকের শাস্তি ব্যভিচারকারীর শাস্তির অনুরূপ। তবে অনেক ইসলামী স্কলার ধর্ষণের ক্ষেত্রে অতিরিক্ত কিছু শাস্তির কথা উল্লেখ করেছেন।
শিরক ও হত্যার পর ব্যভিচার সুস্পষ্ট হারাম বড় ধরনের অপরাধ। কোরআনে কারিমে ইরশাদ হয়েছে, ‘আর ব্যভিচারের কাছেও যেয়ো না। নিশ্চয় এটা অশ্লীল কাজ এবং মন্দ পথ।’ (সুরা আল ইসরা, আয়াত : ৩২)ইসলামে ব্যভিচারের শাস্তি ব্যক্তিভেদে কিছুটা ভিন্ন হয়ে থাকে। ব্যভিচারী বা ধর্ষক যদি বিবাহিত হয়, তাহলে তাকে প্রকাশ্যে পাথর মেরে মৃত্যুদন্ড দেওয়ার বিধান রয়েছে। আর ধর্ষক যদি অবিবাহিত হয়, তাহলে তাকে প্রকাশ্যে একশ ছড়ি মারা হবে। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘ব্যভিচারিণী নারী-ব্যভিচারী পুরুষ, তাদের প্রত্যেককে একশ করে বেত্রাঘাত কর। আল্লাহর বিধান কার্যকর করার কারণে তাদের প্রতি যেন তোমাদের মনে দয়ার উদ্রেক না হয়, যদি তোমরা আল্লাহর প্রতি ইসলামে ধর্ষণের শাস্তি ও পরকালের প্রতি বিশ্বাসী হয়ে থাকো। মুসলমানদের একটি দল যেন তাদের শাস্তি প্রত্যক্ষ করে।’ -সূরা নূর: ২ হাদিসে বলা হয়েছে, ‘অবিবাহিত পুরুষ-নারীর ক্ষেত্রে শাস্তি একশ বেত্রাঘাত এবং এক বছরের জন্য দেশান্তর। আর বিবাহিত পুরুষ-নারীর ক্ষেত্রে একশ বেত্রাঘাত ও রজম অর্থাৎ পাথর মেরে মৃত্যুদন্ড। -সহিহ মুসলিম ধর্ষণের ক্ষেত্রে একপক্ষে ব্যভিচার সংগঠিত হয়। আর অন্যপক্ষ হয় নির্যাতিত। তাই নির্যাতিতার কোনো শাস্তি নেই। কেবল অত্যাচারি ধর্ষকের শাস্তি হবে।ইসলামী আইনশাস্ত্র মোতাবেক ধর্ষকের শাস্তি ব্যভিচারকারীর শাস্তির অনুরূপ। তবে অনেক ইসলামী স্কলার ধর্ষণের ক্ষেত্রে অতিরিক্ত কিছু শাস্তির কথা উল্লেখ করেছেন।

শিরক ও হত্যার পর ব্যভিচার সুস্পষ্ট হারাম বড় ধরনের অপরাধ। কোরআনে কারিমে ইরশাদ হয়েছে, ‘আর ব্যভিচারের কাছেও যেয়ো না। নিশ্চয় এটা অশ্লীল কাজ এবং মন্দ পথ। ’ (সুরা আল ইসরা, আয়াত : ৩২)
প্রখ্যাত তাফসিরবিশারদ ইমাম কুরতুবি (রহ.) বলেন, “উলামায়ে কেরাম বলেছেন, ‘ব্যভিচার করো না’-এর চেয়ে ‘ব্যভিচারের কাছেও যেয়ো না’ এটি অনেক বেশি কঠোর বাক্য।এর সহজ অর্থ হলো, যেসব বিষয় ব্যভিচারে উদ্বুদ্ধ করে ও ভূমিকা রাখে সেগুলোও হারাম।ধর্ষণের শাস্তির ব্যাপারে অনেক হাদিস বর্ণিত হয়েছে।
শাস্তি প্রয়োগের মাধ্যমে বিষয়টির স্পর্শকাতরতা নিশ্চিত করা হয়েছে।  এক হাদিসে আছে, রাসুল (সা.)-এর যুগে এক মহিলাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করা হলে হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) তাকে কোনোরূপ শাস্তি দেননি, তবে ধর্ষককে হদের শাস্তি দেন। ’ (ইবনে মাজাহ, হাদিস নং: ২৫৯৮)
[উল্লেখ্য, যেসব শাস্তির পরিমাণ ও পদ্ধতি কোরআন-হাদিসে সুনির্ধারিত রয়েছে সেগুলোকে হদ বলে]।ধর্ষণের ক্ষেত্রে একপক্ষে ব্যভিচার সংগঠিত হয়। আর অন্যপক্ষ হয় নির্যাতিত। তাই নির্যাতিতের কোনো শাস্তি নেই। কেবল অত্যাচারি ধর্ষকের শাস্তি হবে। 
ধর্ষণের ক্ষেত্রে দু’টো বিষয় অবধারিতভাবে সংঘঠিত হয়। এক. ব্যভিচার। দুই. বলপ্রয়োগ বা ভীতি প্রদর্শন। প্রথমটির জন্য পূর্বোক্ত ব্যভিচারের শাস্তি বরাদ্দ। পরেরটির জন্য ইসলামি আইনজ্ঞদের এক অংশ বলেন, ‘মুহারাবা’র শাস্তি হবে।
মুহারাবা হলো, পথে কিংবা অন্য কোথাও অস্ত্র দেখিয়ে বা অস্ত্র ছাড়া ভীতি প্রদর্শন করে ডাকাতি করা। এতে কেবল সম্পদ ছিনিয়ে নেওয়া হতে পারে, আবার কেবল হত্যা করা হতে পারে। আবার উভয়টিই হতে পারে।
মালেকি মাজহাবের আইনজ্ঞরা ‘মুহারাবা’র সংজ্ঞায় সম্ভ্রম হননের বিষয়টি যোগ করেছেন। তবে সব ইসলামি স্কলারই ‘মুহারাবা’ বলতে পৃথিবীতে অনাচার, নিরাপত্তা বিঘ্নিতকরণ ও ত্রাস সৃষ্টি ইত্যাদি অর্থে উল্লেখ করেছেন।
মুহারাবার শাস্তির ব্যাপারে আল্লাহ তাআলা কোরআনে ইরশাদ করেন, ‘যারা আল্লাহ ও তার রাসুলের সঙ্গে সংগ্রাম করে এবং দেশে হাঙ্গামা সৃষ্টি করতে সচেষ্ট হয়, তাদের শাস্তি হচ্ছে, তাদেরকে হত্যা করা হবে অথবা শূলিতে চড়ানো হবে অথবা তাদের হস্তপদসমূহ বিপরীত দিক থেকে কেটে দেওয়া হবে অথবা দেশ থেকে বহিষ্কার করা হবে। এটি হলো- তাদের জন্য পার্থিব লাঞ্চনা আর পরকালে তাদের জন্যে রয়েছে কঠোর শাস্তি।’ (সুরা মায়েদা, আয়াত: ৩৩)
এখানে হত্যা করলে হত্যার মাধ্যমে শাস্তি, সম্পদ ছিনিয়ে নিলে বিপরীত দিক থেকে হাত-পা কেটে দেওয়া, সম্পদ ছিনিয়ে হত্যা করলে শূলিতে চড়িয়ে হত্যা করার ব্যাখ্যা ইসলামী আইনজ্ঞরা দিয়েছেন। আবার এরচেয়ে লঘু অপরাধ হলে, দেশান্তরের শাস্তি দেওয়ার কথাও উল্লেখ করেছেন। 
মোটকথা, হাঙ্গামা ও ত্রাস সৃষ্টির অপরাধের শাস্তি ত্রাস ও হাঙ্গামাহীন অপরাধের শাস্তি থেকে গুরুতর।বাংলাদেশের প্রচলিত আইনের দৃষ্টিতে ধর্ষন:-বাংলাদেশের সংবিধানে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০, এর ৯ ধারায় ধর্ষণ এবং ধর্ষণ জনিত কারণে মৃত্যু ঘটানো ইত্যাদির সাজা সম্পর্কে আলচনা করা হয়েছে। অত্র ধারায় একজন অপরাধীর সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ডর বিধান রাখা হয়েছে।
বাংলাদেশ সংবিধানে ধর্ষণের সংজ্ঞাযদি কোন পুরুষ বিবাহ বন্ধন ব্যতীত ষোল বৎসরের অধিক বয়সের কোন নারীর সাথে তার সম্মতি ছাড়া বা ভীতি প্রদর্শন বা প্রতারণামূলকভাবে তার সম্মতি আদায় করে, অথবা ষোল বৎসরের কম বয়সের কোন নারীর সাথে তার সম্মতিসহ বা সম্মতি ব্যতিরেকে যৌন সঙ্গম করেন, তাহলে তিনি উক্ত নারীকে ধর্ষণ করেছেন বলে গণ্য হবেন।
নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০, এর ৯ ধারা মতে সাজাসমুহঃ৯(১) যদি কোন পুরুষ কোন নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করেন, তাহলে তিনি যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন এবং এর অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হবেন।
(২) যদি কোন ব্যক্তি কর্তৃক ধর্ষণ বা উক্ত ধর্ষণ পরবর্তী তার অন্যবিধ কার্যকলাপের ফলে ধর্ষিতা নারী বা শিশুর মৃত্যু ঘটে, তা হলে উক্ত ব্যক্তি মৃত্যুদণ্ডে বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন এবং এর অতিরিক্ত অন্যুন এক লক্ষ টাকা অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হবেন।
(৩) যদি একাধিক ব্যক্তি দলবদ্ধভাবে কোন নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করেন এবং ধর্ষণের ফলে উক্ত নারী বা শিশুর মৃত্যু ঘটে বা তিনি আহত হন, তা হলে ঐ দলের প্রত্যেক ব্যক্তি মৃত্যুদণ্ডে বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন এবং এর অতিরিক্ত অন্যুন এক লক্ষ টাকা অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হবেন।
(৪) যদি কোন ব্যক্তি কোন নারী বা শিশুকে-
(ক) ধর্ষণ করে মৃত্যু ঘটানোর বা আহত করার চেষ্টা করেন, তাহলে উক্ত ব্যক্তি যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হইবেন এবং এর অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হবেন;(খ) ধর্ষণের চেষ্টা করেন, তাহা হইলে উক্ত ব্যক্তি অনধিক দশ বত্সর কিন্তু অন্যুন পাঁচ বত্সর সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন এবং এর অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হবেন।
(৫) যদি পুলিশ হেফাজতে থাকাকালীন সময়ে কোন নারী ধর্ষিতা হন, তা হলে যাহাদের হেফাজতে থাকাকালীন উক্তরূপ ধর্ষণ সংঘটিত হয়েছে, সেই ব্যক্তি বা ব্যক্তিগণ ধর্ষিতা নারীর হেফাজতের জন্য সরাসরিভাবে দায়ী ছিলেন, তিনি বা তারা প্রত্যেকে, ভিন্নরূপ প্রমাণিত না হলে, হেফাজতের ব্যর্থতার জন্য, অনধিক দশ বত্সর কিন্তু অন্যুন পাঁচ বত্সর সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডনীয় হবেন এবং এর অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হবেন।
দন্ডবিধি ১৮৬০ এর ৩৭৫ ধারা মোতাবেক নিম্নলিখিত পাঁচটির যে কোন অবস্থায় পুরুষ লোক কোন নারী বা স্ত্রী লোকের সহিত যৌন সহবাস করলে সে ধর্ষণ করেছে বলে গণ্য হবে।যেমনঃ১।স্ত্রী লোকটির ইচ্ছার বিরোদ্ধে।২। স্ত্রী লোকটির সম্মতি ব্যতীত।৩।স্ত্রী লোকটির সম্মতি ক্রমেই, কিন্তু মৃত্যুর বা জখমের ভয় ভীতি দেখিয়ে সম্মতি আদায় করা হলে।৪।স্ত্রী লোকটির সম্মতি ক্রমেই,কিন্তু পুরুষ টি জানে যে সে স্ত্রী লোকটির স্বামী নয়। স্ত্রী লোকটি জানে পুরুষ টি তার স্বামী, এ ভেবে স্ত্রী লোকটি ভূল করলে।৫।স্ত্রী লোকটির সম্মতি ক্রমেই কিংবা সম্মতি ব্যতীত যদি স্ত্রী লোকটির বয়স ১৪ বছরের কম হয়।নারী ধর্ষণ দন্ডবিধি আইনের ৩৭৫ ধারা।ধর্ষণের শাস্তি দন্ডবিধি আইনের ৩৭৬ ধারা।ব্যাখ্যা:-ধর্ষনের অপরাধের জন্য প্রয়োজনীয় যৌনসঙ্গমের জন্য যৌনাঙ্গ প্রবিষ্ট করাই যথেষ্ট বিবেচিত হবে।ব্যতিক্রম:- কোন পুরুষ কর্তৃক তার স্ত্রীর সঙ্গে যৌন সহবাস যদি স্ত্রীর  বয়স তের বছরের কম না হয় তবে নারী ধর্ষণ বলে পরিগণিত হবে না
দন্ডবিধি ১৮৬০ এর ৩৭৬ ধারাতে ধর্ষনের শাস্তি সম্পর্কে বলা হয়েছে,যদি কোন ব্যক্তি, নারী ধর্ষন করে তাহলে সে ব্যক্তি যাবজ্জীবন কারাদন্ডে বা যে কোন বর্ণনার কারাদন্ডে- যার মেয়াদ মেয়াদ ১০ বছর পর্যন্ত হতে পারে এবং এতদ্ব্যতীত অর্থদন্ডেও দন্ডনীয় হবে,ধর্ষিত নারী টি তার নিজ স্ত্রী হলে এবং তার বয়স ১২ বছরের কম হলে শেষোক্ত ক্ষেত্রে সে ব্যক্তি যে কোন বর্ণনার কারাদন্ডে- যার মেয়াদ ২ বছর পর্যন্ত হতে পারে অথবা অর্থদন্ড বা উভয় দন্ডে দন্ডিত হবে।
পরিশেষে একটি কথাই বলবো,ধর্ষনের মত জঘন্যতম কাজ থেকে সমাজ কে মুক্ত করতে হবে। আমাদের মানবিক গুণাবলী জাগ্রত করতে হবে। অবাধ মেলামেশা, পর্নো সংস্কৃতির নামে অশ্লীল নাটক-সিনেমা, নাচ-গান, বই-ম্যাগাজিন ইত্যাদি মানুষকে প্রবলভাবে ব্যভিচারে প্ররোচিত করে এবং তা বর্জন করতে হবে। ধর্মীয় ও যৌন শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে। সর্বোপরি, সমাজ থেকে খুন, ধর্ষণ, নির্যাতন যদি রোধ করতে চাই, তাহলে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে অপরাধীর সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।

লেখক:-মোঃ মাহমুদুল হাসান দিনার, এল.এল.বি(অর্নাস), মানারাত ইন্টারন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয়।

Print Friendly, PDF & Email