• সোমবার, ২০ মে, ২০১৯

এতটুকুতে খুশি নন তামিম

untitled-5_245427প্রায় ১৪ মাস বিরতির পর সাদা পোশাকের ক্রিকেটে ফিরেই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচ উপহার দিয়েছে বাংলাদেশ। যদিও ম্যাচ শেষে ২২ রানের হারের যন্ত্রণায় পুড়তে হয়েছে। তবু ইতিবাচক অনেক কিছুই বাংলাদেশ পেয়েছে চট্টগ্রাম টেস্ট থেকে। ইংলিশ ব্যাটিং লাইনআপকে দুই ইনিংসেই ৩০০ রানের নিচে বেঁধে ফেলা, দুই অভিষিক্ত ক্রিকেটার মেহেদি হাসান মিরাজ আর সাবি্বর রহমানের সম্ভাবনাময় শুরু বা স্পিনিং উইকেটেও ব্যাটসম্যানদের ভালো জবাব দেওয়া_ দীর্ঘদিন টেস্ট আঙিনার বাইরে থাকা বাংলাদেশকে আত্মবিশ্বাসী করার অনেক রসদ দিয়েছে সিরিজের প্রথম টেস্টে। আর এই রসদগুলোই ঢাকা টেস্টে বাংলাদেশ দলকে আরও উজ্জীবিত করতে পারে বলে মনে করেন তামিম ইকবাল। বুধবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে অন্য সব কিছুর চেয়ে দলের ক্রিকেটারদের পারফরম্যান্সের ওপরই বেশি জোর দেওয়ার কথাও জানালেন বাংলাদেশ দলের এই ওপেনার

হ চট্টগ্রাম টেস্ট দিয়ে দীর্ঘ বিরতির পর টেস্ট ক্রিকেটে ফিরেছে বাংলাদেশ। ঢাকা টেস্টে কি মাঝের ওই অনভ্যস্ততাটা কোনো প্রভাব ফেলবে?

তামিম :আমার মনে হয় না ফেলবে। কারণ আমরা প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ একটা ম্যাচ খেলেছি। আমার মনে হয়, এত বড় বিরতির পর প্রথম ম্যাচটা যদি ভালো না খেলতাম, তাহলে হয়তো এর প্রভাব একটু থাকত। যেহেতু আমরা একটা ভালো ম্যাচ খেলেছি, তাই আমরা আগের চেয়ে ভালো প্রস্তুত থাকব, আত্মবিশ্বাসীও থাকব।

হ চট্টগ্রাম টেস্টে দলের পারফরম্যান্স দেখে কি মনে হয়েছে, টেস্ট দলে যে ঘাটতিগুলো ছিল, সেগুলো থেকে খানিকটা উত্তরণ হয়েছে?

তামিম :সবাই বলছে, আমরা খুব ভালো খেলেছি। কিন্তু আজ আমরা দলে আলোচনা করলাম, এতটুকুতে যদি খুশি হয়ে যাই, তাহলে আমরা কোনো সময় উন্নতি করতে পারব না। ম্যাচ হারায় আমরা সবাই কষ্ট পেয়েছি। যদি জিততাম তাহলে অন্যরকম কথা ছিল। আমরা হারার পরও সবাই বলছে আমরা ভালো খেলেছি_ এটা চিন্তা করে যদি আমরা আগাই, আমার মনে হয় না এটা ভালো কিছু হবে। কিছু ইতিবাচক জিনিস তো অবশ্যই ছিল, আমরা পাঁচ দিনই প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছি। যদি আমরা ম্যাচ জিততে পারতাম, অন্যরকম অনুভূতি থাকত। প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার কথাটা অনেক দিন ধরে সবাই বলে, আমিও বলছি। আমাদের টেস্ট রেকর্ডও এমন না যে, বলব আর জিতব এ রকম। একটা জিনিস আমি আপনাকে নিশ্চিত করতে পারি, মাঠে যে ১১ জন নামে, তারা নামেই কিন্তু জেতার জন্য। পারি না-পারি, এটা অন্য বিষয়।

হ ঢাকা টেস্টেও কি চট্টগ্রামের মতোই উইকেট চাইবেন?