ব্যাট হাতে রশিদ খানের তান্ডব

photo-1497092972বল হাতে তিনি যে কতটা দুর্ধর্ষ- সেটা ক্রিকেট বিশ্বের সবারই জানা। কিন্তু ব্যাটিং? হ্যাঁ, এবার সেটিও দেখিয়ে দিলেন রশিদ খান। চোখ ধাঁধানো একটি ইনিংস খেললেন জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে শেষ ওয়ানডেতে। ২৯ বলের সেই ইনিংসে চার-ছক্কার ঝড় তুলেছেন তিনি। করেছেন অনবদ্য ৪৩ রান। ফলাফল আফগানিস্তানের ভালো স্কোর এবং বিশাল ব্যাবধানে জয়। সর্বোপরি ৪-১ এ ওয়ানডে সিরিজ জয়।

সোমবার টস জিতে ব্যাট করতে নামে আফগানিস্তান। দলীয় ‘আনলাকি থার্টিনে’ সাজঘরে ফিরেন ওপেনার মোহাম্মদ শেহজাদ। এরপর ক্রিজে আসেন রহমত শাহ। ওপেনার জাবেদ আহমেদির সাথে জুটি বাধেন তিনি। তারা দলকে অনেকটা এগিয়ে দেন। ১২৯ রানের পাটর্নারশিপ গড়া এই জুটির ভাঙন ধরান সিকান্দার রাজা। ৫৯ রান করা রহমত শাহকে সাজঘরে ফেরান তিনি। কিছুটা বিরতির পর রান আউট হন অপরজন জাবেদ আহমাদি। ৮৭ বলে ছয় বাউন্ডারি ও দুই ছক্কায় ৭৬ রানের অসাধারণ একটি ইনিংস খেলেন তিনি।

এরপর ক্রিজে টিকতে পারেননি টপ-অর্ডার ও মিডল-অর্ডারের কেউই। মোহাম্মদ নবি ফিরেন মাত্র নয় রানে।

দলের এই বেহাল অবস্থায় হাল ধরেন রশিদ খান। চার-ছক্কার তাণ্ডব চালিয়ে ২৯ বলে ৪৩ রান করেন। তিন বাউন্ডারি ও তিন ছক্কা থেকেই তুলে নেন ৩০ রান। বাকিটা ঘাম ঝরিয়ে। তার দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ৫০ ওভারে আফগানিস্তানের সংগ্রহ দাঁড়ায় ২৪১ রান। এই সময় তাকে সঙ্গ দিয়েছেন শরাফুদ্দিন আশরাফ (২১)।

২৪২ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নামে জিম্বাবুয়ে। তবে ক্রিজে বেশিক্ষণ কাউকে টিকতেই দেননি আফগান বোলাররা। রশিদ খানের বোলিং তাণ্ডবে মাঠ ছাড়ছিলেন একের পর এক ব্যাটসম্যান। শেষ মেষ ৩২তম ওভারে ৯৫ রানে গুটিয়ে যায় জিম্বাবুয়ে। পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ জিতে নেয় আফগানিস্তান।

৫ ওভারে এক মেডেন আর ১৩ রান খরচ করেই ৩ উইকেট শিকার করেন রশিদ।

মোহাম্মদ নবি ও শরাফুদ্দিন শিকার করেন দুটি করে উইকেট নেন।

ম্যাচ সেরা হন শরাফুদ্দিন। আর সিরিজ সেরা রশিদ খান।

এর আগে টি-২০ সিরিজে জিম্বাবুয়েকে হোয়াইওয়াশ করেছিল আফগানিস্তান।