সরফরাজদের তুলোধোনা করল পাক গণমাধ্যম

বিশ্বকাপে ভারত এবং পাকিস্তানের খেলা মানেই এক অন্যরকমের উত্তেজনা। বিশ্বকাপে এ দুটি দেশ মুখোমুখি হয়েছে সাতবার। প্রতিবারই জিতেছে ভারত। পাকিস্তানের পরাজয়ে হতাশ দেশটির সাবেক ক্রিকেটার থেকে শুরু করে সমর্থকরা। এই হারের জন্য দলনেতা সরফরাজকেই কাঠগড়ায় দাঁড় করাচ্ছেন তারা।

এদিকে চলতি বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বিদের কাছে ৮৯ রানে হেরেছে পাকিস্তান।

সেই সূত্র ধরে পাকিস্তানের প্রভাবশালী সংবাদপত্র ডন ইন্দো-পাক মহারণের শিরোনাম করেছে, ভারত ৭ পাকিস্তান ০।

এর প্রতিবেদনে পাকিস্তান দলের সমালোচনা করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভালো দলের বিপক্ষে হারলে কারো কিছু বলার নেই। তবে কয়েকটা ব্যাপার নিজেদের নিয়ন্ত্রণাধীন। যেমন, দল নির্বাচন, টস জিতে কী করা উচিত ইত্যাদি। মাঠে নেমে নিজেদের সেরাটা উজাড় করে দিতে হয়। কিন্তু, সুযোগ পেয়েও ভারতের টপ স্কোরার রোহিত শর্মাকে দু’বার রানআউট করতে পারেনি সরফরাজরা।

পাক অধিনায়কের সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে ডন লিখেছে, ওল্ড ট্র্যাফোর্ডের উইকেট এশিয়ার মতো ছিল। তবুও কেন প্রথমে ব্যাট নেয়া হলো না, জবাব খুজে পাওয়া যাচ্ছে না।

দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন শিরোনামে লিখেছে, পাকিস্তানকে হারিয়ে রেকর্ড অক্ষুন্ন রাখল ভারত। জিও টিভির খবরে সরফরাজের অতিরঞ্জিত বক্তব্য প্রকাশিত হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ভারতের কাছে বাজেভাবে হারের পরও বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যাওয়ার ভয় পাচ্ছি না। ঘুরে দাঁড়ানোর ব্যাপারে আশাবাদী।

পাকিস্তান অবজারভারে হেডলাইন করা হয়েছে, বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে টানা জয়ের ধারা বজায় রাখল ভারত।

এদিকে ভারতের বিপক্ষে হার নিয়ে শোয়েব আখতার বলেন, ‘আমি বুঝতে পারছি না কীভাবে একজন অধিনায়ক এতটা নির্বোধ হতে পারে। সে কি জানে না, আমরা রান তাড়া করে খেলতে খুব একটা দক্ষ নই! উইকেটের চারদিকে পুরোটা শুষ্ক ছিল, ভেজা নয়। সে কি জানতো না যে আমাদের শক্তিটা বোলিংয়ে, ব্যাটিং নয়?’

ভারতের বিপক্ষে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার উপদেশ দিয়েছিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। কিন্তু সেই পরামর্শ কানে না লাগিয়ে প্রথম বোলিং করার সিদ্ধান্ত নেন পাকিস্তান অধিনায়ক।