শিরোনাম :

  • সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

লড়াই করে অজিদের কাছে ৪৮ রানে হার, প্রাপ্তি মুশফিকের সেঞ্চুরি

স্পোর্টস ডেস্ক: বোলিং ও ফিল্ডিংয়ে ব্যর্থতায় মুশফিকুর রহিম অপরাজিত সেঞ্চুরি (১০২) রান করেও দলকে বাঁচাতে পারেননি হার থেকে। বিশ্বকাপের ২৫তম ম্যাচে বাংলাদেশকে ৪৮ রানে পরাজিত করেছে অস্ট্রেলিয়া। এই হারে বাংলাদেশের সামনে সেমিফাইনালের স্বপ্ন অনেকটা ঝাপসা হয়ে গেলো। জয় ছাড়া বিকল্পহীন ম্যাচে বাংলাদেশী বোলারদের খরুচে বোলিংয়ে আগে ব্যাট করে বাংলাদেশকে ৩৮২ রানের পহাড়সম লক্ষ্য দেয় অজিরা। ব্যাট হাতে ডেভিড ওয়ার্নরের (১৬৬) ও ওসমান খাজার (৮৯) রানের ওপর ভর করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ৩৮১ রান সংগ্রহ করে অস্ট্রেলিয়া ব্যাটসম্যানরা।

৩৮১ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ৩৩৩ রান সংগ্রহ করতে সক্ষম হয় বাংলাদেশ। দলের হয়ে মুশফিকুর রহিমের অপরাজিত (১০২), মাহমুদুল্লাহর (৬৯) ও তামিম ইকবাল (৬২) রান করেন।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামার আগে হাতে চারটি ম্যাচ টাইগারদের। সেমিফাইনালে উঠতে হলে সবগুলো ম্যাচেই ভালো ফল বয়ে আনতে বাংলাদেশ দলকে। এমন চ্যালেঞ্জ নিয়ে ক্যাঙ্গারুদের বিপক্ষে মাঠে নামে বাংলাদেশ। ভালো কিছু করতে পারলে সেমিফাইনালের আশা আরো তীব্রভাবে জাগবে। আর হারলে সমীকরণটা আরো কঠিন হবে। এমন হিসেব-নিকেশ নিয়ে নটিংহ্যাম ট্রেন্ট ব্রিজে বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৩টায় অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ। টস জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেনে অজি অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ।

আগে ব্যাট করতে নেমে দুই ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার ও অ্যারন ফিঞ্চ ‍মিলে দুর্দান্ত শুরু করে অজিরা। ২০.৫ ওভারে ১২১ রান আসে দুজনের ওপেনিং জুটি থেকে। উইকেট তুল নিতে দলের নিয়মিত সব বোলিং অস্ত্র ব্যাবহার করে যখন ব্যর্থ প্রচেষ্টা টাইগার অধিনায়কের। তখনই আস্থা রাখলেন্ পার্ট টাইম পেস বোলার সৌম্য সরকারের ওপর। কাপ্তানের আস্থার দাম দিতে দেরীও করেননি সৌম্য। ইনিংসের ২১তম ও নিজের প্রথম ওবারের পঞ্ম বলে ৫৩ রান করা অ্যারন ফিঞ্চকে দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে রুবেলের ক্যাচের ফাঁদে ফেলে ফেরান সৌম্য। অন্যদিকে আরেক ওপেনার ওয়ার্নার দেখে-শুনে খেলে ১১৩ বলে তুলে নেন ক্যারিয়ারের ১৫তম সেঞ্চুরি। ফিঞ্চের আউটের পর পরবর্তী উইকেট নেয়ার জন্য বাংলাদেশকে অপেক্ষা করতে হয়েছে ২৩.১ ও্ভার। খাজা-ওয়ার্নার মিলে ১২৪ বলে তোলেন ১৫০ রান তোলেন। সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে বিধ্বংসী হয়ে ওঠেন ওয়ার্নার। সেঞ্চুরি হাঁকানোর পর পরবর্তী পঞাশ রান ছুঁতে ব্যবহার করেন ২৬ বল। শেষ পর্যন্ত ১৪৭ বলে ১৪ চার ও ৫ ছয়ে ১৬৬ রান করে সৌম্যর দ্বিতীয় শিকার হয়ে রুবেলের তালুবন্দী হয়ে ফেরেন ওয়ার্নার। ওয়ার্নারের ঝড় থামানোর পর, মাঠে নেমে ফের ঝড় তোলেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ১০ বলে করেন ৩ ছক্কা ও দুই চারে ৩২ রান করে রান আউটের শিকার হন ম্যাক্সি। ৭২ বলে ৮৯ রান করে ওসমান খাজাও ফেরেন সৌম্যর তৃতীয় শিকার হয়ে। এরপর শেষদিকে মার্কোস স্টয়নিসের ১১ বলে ১৭ ও অ্যালেক্স কেরির অপরাজিত ৮ রানের সুবাধে ৫০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ৩৮১ রান সংগ্রহ করে অস্ট্রেলিয়া।

তবে ৪৯ ওভারে অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিংয়ে বৃষ্টি হানা দেয়। কিছু সময় খেলা বন্ধ থাকে। বৃষ্টি বন্ধ হলে বাকি এক ওভারের খেলাও মাঠে গড়ায়।