শিরোনাম :

  • সোমবার, ২৫ জানুয়ারি, ২০২১

বোলাররা ভালো করছে বলেই ব্যর্থ হচ্ছে টপ-অর্ডাররাঃ নান্নু

নিউজ ডেস্কঃ প্রায় ৬ মাসের বিরতি। এই ছয় মাসে ক্রিকেটাররা ফিটনেস নিয়ে কাজ করেছেন ঠিকই কিন্তু কাজ করতে পারেননি স্কিল নিয়ে। যদিও অনেককে দেখা গেছে বাড়ীর গ্যারেজে কিংবা উঠোনে ব্যাটিং-বোলিং অনুশীলন করতে। তাতে আর কতই বা কী।

করোনা মহামারির লম্বা বিরতি শেষে যখন শ্রীলঙ্কা সিরিজের জন্য প্রস্তুতি শুরু হলো তখনই স্থগিত হয়ে যায় সফরটি। তাই দ্রুতই বিসিবি উদ্যোগ নেয় প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে ফেরার।সে অনুযায়ী লঙ্কা সফরের প্রাথমিক দলে থাকা ক্রিকেটারদের সঙ্গে আর কয়েকজন যোগ করে শুরু হয়েছে তিন দলের ওয়ানডে টুর্নামেন্ট। যেখানে পারফরম্যান্সে ব্যাটসম্যানদের থেকে বেশ এগিয়ে বোলাররা।গুটিকয়েক ব্যাটসম্যান ছাড়া বাকিরা প্রমানে ব্যর্থ হচ্ছেন নিজেদের। শনিবার গণমাধ্যমের মুখোমুখি হন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু।এসময় প্রশ্ন রাখা হয় টপ-অর্ডারের ব্যর্থতা নিয়ে।

নান্নু বলেন, বোলাররা ভালো করছে বলেই ব্যর্থ হচ্ছে টপ-অর্ডাররা।‘কিছু কিছু জায়গা তো আপনাকে দেখতে হবে। বোলার যদি ভালো বল করে তাহলে টপ অর্ডার ব্যর্থ হবে আবার ব্যাটসম্যানরাও যদি ভালো করে তবে বোলাররাও ব্যর্থ হবে। সবমিলিয়ে এই কয়দিন যেটা দেখেছি আমাদের পেসাররা বেশ ভালো ফিটনেসের ছাপ রেখেছে। তাদের যে স্কিলেও উন্নতি হয়েছে সেটা বোঝা যাচ্ছে এবং ধারাবাহিকভাবে যথেষ্ট ভালো লাইনে বল করছে।

এটা হলো সবচেয়ে বড় পাওয়া। এই উন্নতিটা যদি ধারাবাহিকভাবে ধরে রাখে ভবিষ্যতে আমাদের জন্য ভালো কাজে দিবে সব ফরম্যাটে ক্রিকেটার বাছাইয়ে।’নান্নু আরও বলেন, পেসারদের পারফরম্যান্স মূল্যায়ন করলে সবাই ভালো করছে। তবে ধারাবাহিক হতে বলে জানান তিনি।‘সবাই ভালো করছে। এখানে নির্দিষ্ট করে তো একজনের নাম বলা যায় না। সবাই ভালো করছে, এটা আমাদের জন্য ইতিবাচক।

আমরা চাচ্ছি যেসব ফাস্ট বোলার আছে, আমরা আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে গেলে ইনজুরির পরিমাণ অনেক বেশি। তো ব্যাক টু ব্যাক দুটো টেস্ট ম্যাচ খেলানোর জন্য পেসার পাওয়া যায় না। যেহেতু ফিটনেসের ভালো অবস্থা দেখছি, তাদের পারফরম্যান্সও ভালো এ জায়গায় এটা ধারাবাহিক থাকলে আমাদের ভবিষ্যতের জন্যই যথেষ্ট ভালো।’

Print Friendly, PDF & Email