মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার খুলতে কাল থেকে দুদিনব্যাপী বৈঠক

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশের শ্রমবাজার চালুর বিষয়ে দুদেশের মধ্যে গঠিত যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের তৃতীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৩০ ও ৩১ মে (বৃহস্পতি ও শুক্রবার) কুয়ালালামপুরে। বৈঠকে স্থগিত হওয়া শ্রমবাজার পুনরায় চালুর বিষয়ে সুখবরের আশা করছেন ঢাকার কূটনীতিকরা।

প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর মহাপরিচালক মো. সেলিম রেজার নেতৃত্বে সাত সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল বৈঠকে অংশ নিতে গত ২৮ মে (মঙ্গলবার) কুয়ালালামপুরে পৌঁছেছেন।

‘কুয়ালালামপুরের যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের বৈঠকে মালয়েশিয়ায় স্থগিত হওয়া শ্রমবাজার চালুর বিষয়ে সুখবর খবর আসতে পারে’ উল্লেখ করেছেন প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদ। তিনি বলেন, ‘আগে মালয়েশিয়াতে কর্মী পাঠাতে অনেক বেশি অর্থ নেওয়া হয়েছে। এখন যেন আগের মতো না হয়, সে জন্য আমরা কাজ করছি। দেড় লাখ টাকার মধ্যে যাতে মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানো যায় সেজন্য কাজ করছি।’

এর আগে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদ মালয়েশিয়ায় স্থগিত হওয়া শ্রম বাজার চালু করতে এবং ওই দেশের সরকারের সঙ্গে দরকষাকষি করতে গত ১১ মে (শনিবার) কুয়ালালামপুরে ছয় দিনের সরকারি সফর করেন।

ঢাকা-কুয়ালালামপুর কূটনৈতিক সূত্রগুলো জানাচ্ছে, প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদের মালয়েশিয়া সফরে শ্রম খাত সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে অনুষ্ঠিত বৈঠকগুলো খুবই সফল হয়েছে। ওই সফরে মালয়েশিয়ার মানবসম্পদ মন্ত্রী কুলাসেগারন এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী হাজী মুহিউদ্দিন বিন হাজি মোহা ইয়াসিনের সঙ্গে প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদের বৈঠকের পরই তৃতীয় জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের বৈঠকের সিদ্ধান্ত হয়। আশা করা হচ্ছে, জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের বৈঠকের পর স্থগিত হওয়া শ্রম বাজার উন্মুক্তের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসবে।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে, বিগত ১৯৭৬ সাল থেকে চলতি বছর পর্যন্ত মালয়েশিয়ার শ্রম বাজারে মোট ১০ লাখ ৫৬ হাজার ৫৬৬ বাংলাদেশি শ্রমিক কাজ করতে যান। যা বৈদেশিক শ্রম বাজারের আট দশমিক ৫৫ শতাংশ।

অন্যদিকে, চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ২০৩ দশমিক ৩২ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের সমপরিমাণ মুদ্রার রেমিটেন্স মালয়েশিয়া থেকে পাওয়া গেছে।