খালেদা জিয়ার ডায়াবেটিস অনিয়ন্ত্রিত, কারাগারে নেয়া ঝুঁকিপূর্ণ

ইমরান সামি : বিএনপি চেয়ারপারসন কারাবন্দি খালেদা জিয়ার ডায়াবেটিস তথা রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা ওঠানামা করছে। ডায়াবেটিস অনিয়ন্ত্রিত হয়ে পড়ায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতাল থেকে কারাগারে স্থানান্তরের বিষয়ে চিকিৎসকরা ছাড়পত্র দিচ্ছেন না। সরকার চায় তাকেঁ কেরানীগঞ্জের কারাগারে স্থানান্তর করতে। সরকারের সার্বিক প্রস্তুতি থাকার পরও স্বাস্থগত কারণে বিএনপিপ্রধানকে কেরানীগঞ্জে নবনির্মিত ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থানান্তর বিলম্বিত হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, খালেদা জিয়ার অন্যান্য শারিরীক সমস্যা স্থিতিশীল রয়েছে। তবে তাঁর রক্তে গ্লুকোজ কখনো বেশি আবার কখনো কমে যাচ্ছে। এ কারণে তাঁর ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে নিয়মিত চিকিৎসা দিতে হচ্ছে। এ অবস্থায় তাঁকে হাসপাতাল থেকে কারাগারে নেয়া ঝুঁকিপূর্ণ মনে করেছে চিকিৎসকরা। ফলে স্থানান্তরের চিন্তা থেকে আপাতত সরে আসতে হয়েছে সরকারকে।

উচ্চ আদালতের নির্দেশে খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য গত বছরের ৬ অক্টোবর পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে বিএসএমএমইউ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে মাসখানেক চিকিৎসা শেষে ৮ নভেম্বর চিকিৎসকরা ছাড়পত্র দেওয়ার পর তাঁকে কারাগারে ফিরিয়ে নেওয়া হয়। শারীরিক অসুস্থতার কারণে গত ১ এপ্রিল তাঁকে আবারও বিএসএমএমইউ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিন মাস ধরে তিনি এই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

এদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল গত ঈদুল ফিতরের আগে জানান, বিএসএমএমইউ হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে খালেদা জিয়াকে কেরানীগঞ্জে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থানান্তর করা হবে। কারা সূত্রও জানিয়েছিল যে কেন্দ্রীয় কারাগারের নতুন তৈরি করা মহিলা

ইউনিটে খালেদা জিয়ার থাকার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। সে লক্ষ্যে মহিলা ইউনিটের ভিআইপি ওয়ার্ড প্রস্তুতও করা হয়।

কারা সূত্র জানায়, কেরানীগঞ্জের কেন্দ্রীয় কারাগারের মহিলা ইউনিটে তিনতলার ডিভিশন সেলের ভিআইপি সেলে খালেদা জিয়াকে রাখার জন্য প্রস্তুতি নেওয়া আছে।