শিরোনাম :

  • রবিবার, ১৬ জুন, ২০১৯

‘বিতর্কিত করার জন্য এসব চক্রান্ত করছে’

নিউজ ডেস্কঃ ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি নিয়ে সৃষ্ট জটিলতায় সংগঠনটিতে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব, আস্থাহীনতা, পরস্পরের প্রতি ঘৃণা ও বিদ্বেষ ক্রমশই বাড়ছে। চলমান সংকট নিয়ে কমিটিতে পদবঞ্চিত ও প্রত্যাশিত পদ না পাওয়া নেতারা দুষছেন বর্তমান নেতৃত্বকে। তাদের বক্তব্য- ছাত্রলীগের এই বর্তমান পরিস্থিতির জন্য সংগঠনটির বর্তমান সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের উদাসীনতাই দায়ী।

এদিকে বর্তমান নেতারা বলছেন সিন্ডিকেটের কথা।

ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর ভাষ্য- ছাত্রলীগে দীর্ঘদিনের একটা সিন্ডিকেট রয়েছে, তারাই নানাভাবে সংগঠনকে বিতর্কিত করার জন্য এসব চক্রান্ত করছে।

অন্যদিকে নবগঠিত কমিটি প্রত্যাখ্যান করে ক্ষোভ প্রকাশ করতে গিয়ে দু’দফায় নতুন কমিটিতে পদপ্রাপ্ত নেতা ও তাদের অনুসারীদের হামলার শিকারও হয়েছেন পদবঞ্চিতরা। এর পরও বিতর্কিতদের কমিটি থেকে বাদ দেওয়ার দাবিতে আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে।

এর আগে গত ১৩ মে সোমবার সম্মেলনের এক বছর পর ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। কমিটি প্রত্যাখ্যান করে ওইদিনই শুরু হয় বিক্ষোভ। নবগঠিত কমিটিতে পদ পাওয়া শতাধিক বিতর্কিত নেতাকে কমিটি থেকে বাদ দেওয়ার দাবি আসে। চাপের মুখে ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বুধবার ১৭ জন বিতর্কিত নেতার একটি তালিকা প্রকাশ করেন।

তাদের বিরুদ্ধে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তথ্যপ্রমাণ সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করে পদগুলো শূন্য ঘোষণা করে বঞ্চিতদের পদায়নের ঘোষণা দিলেও এখনো তার বাস্তবায়ন হয়নি।