নামাজরত প্রবাসীর স্ত্রীর দুই হাতের কব্জি কেটে নিল দুর্বৃত্তরা

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি |

লক্ষ্মীপুরে নামাজরত অবস্থায় প্রবাসীর স্ত্রী মরিয়ম বেগমের (৩৮) দুই হাতের কব্জি কেটে দিয়েছে বখাটে জাহিদ হোসেনসহ দুর্বৃত্তরা। এ সময় তার শিশু সন্তান নাদিয়া সুলতানাকেও (৮) কুপিয়ে আহত করে তারা। তাদের দু’জনকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। পরে তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য তাদেরকে ঢাকায় পাঠান।
শনিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে সদর উপজেলার বশিকপুর ইউনিয়নের বালাশপুর গ্রামের দেওয়ান বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন সৌদি প্রবাসী নবী উল্যার স্ত্রী মরিয়ম বেগম ও তার মেয়ে ৮ বছরের শিশু সাদিয়া সুলতানা। তাদের দুই হাত ও মাথায় ধারালো অস্ত্রের আঘাতের ছিহ্ন রয়েছে। রাত ১০টার দিকে এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দু’জনকে আটক করেছে পুলিশ। তবে কী কারণে এ ঘটনা ঘটেছে তা নিশ্চিত করতে পারেনি পুলিশ।

স্থানীয় আমানত উল্যা জানান, রাতে প্রবাসী নবী উল্যার বাড়ি থেকে তার স্ত্রী মরিয়ম বেগমের চিৎকার শুনে স্থানীয়রা ঘটনাস্থলে যায়। এ সময় রক্তাক্ত অবস্থায় মা ও মেয়েকে পড়ে থাকতে দেখে তারা। এ সময় ওই বাড়ির জাহিদ নামে এক বখাটে হামলা করে তাদের জখম করে বলে স্থানীয়দের জানায় আহত প্রবাসীর স্ত্রী। এক পর্যায়ে মুমূর্ষ অবস্থায় ঘটনাস্থল থেকে তাদের দু’জনকে উদ্ধার করে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে আনা হয়। পরে অবস্থার অবনতি দেখে চিকিৎসক তাদের ঢাকায় প্রেরন করেন।

সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. আসিফ জানান, রাতে আহত অবস্থায় দু’জনকে সদর হাসপাতালে আনা হয়। তাদের মধ্যে গৃহবধূ মরিয়ম বেগমের দুই হাতের কব্জি কেটে ফেলা হয়েছে ও শিশু কন্যা নাদিয়া সুলতানাকে কুপিয়েছে। তাদের দু’জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

চন্দ্রগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. জসিম উদ্দিন জানান, আমরা ঘটনাস্থলে রয়েছি। কী কারণে এ ঘটনা ঘটেছে তা জানার চেষ্টা করছি। ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে দু’জনকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে।

Print Friendly, PDF & Email