• মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি, ২০২৩

মার্কিন রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে অশোভন আচরণকারিদের পক্ষে সাফাই

তারা মানবাধিকার বিরোধী চেহারা উন্মোচন করেছেন : বিএফইউজে

নিজস্ব প্রতিবেদক ◾

ভিন্নমত দমনে রাষ্ট্র এবং ক্ষমতাসীন দলের নিবর্তনমূলক, আগ্রাসী ও নিষ্ঠুর আচরণ গভীর উদ্বেগ এবং শঙ্কা প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে)।

সরকার ক্ষমতা কুক্ষিগত রাখতেই সাধারণ জনগণের পাশাপাশি বিদেশি কূটনীতিকদেরও ভয়ভীতি দেখানোর কৌশল নিয়েছে বলে মত প্রকাশ করে সম্প্রতি মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার ডি হাস রাজধানীতে একজন নিখোঁজ বিএনপি নেতার বাসায় গিয়ে যে পরিস্থিতির শিকার হয়েছেন তাতে বিএফইউজে নির্বাহী পরিষদ গভীর উদ্বেগ ও তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। নির্বাহী পরিষদের সভায় গৃহীত প্রস্তাবে বলা হয়, মানবতা এবং মানবাধিকার সমুন্নত রাখার স্বার্থে মার্কিন রাষ্ট্রদূত গুমের শিকার হয়ে প্রায় এক দশক ধরে নিখোঁজ কোন নাগরিকের বাসায় সহমর্মিতা জানাতে গিয়ে মহানুভবতার পরিচয় দিয়েছেন। কিন্তু সরকার এবং তাদের সমর্থকরা পরিকল্পিতভাবে ঘটনাটিকে বিতর্কিত করতেই ওই বাসার সামনে গিয়ে নজীরবিহীন হট্টগোলের সৃষ্টি করে। এতে রাষ্ট্রদূতের নিরাপত্তা মারাত্মক হুমকির মুখে পড়ে। পরবর্তীতে সরকারের সুবিধাভোগী কতিপয় নাগরিক বিবৃতি দিয়ে ন্যাক্কারজনক ঘটনার পক্ষে সাফাই গাওয়ার মাধ্যমে নিজেদের মানবাধিকারবিরোধী চরিত্র উন্মোচন করেছে।

গতকাল শনিবার (১৭ ডিসেম্বর, ২০২২) জাতীয় প্রেসক্লাবের অবস্থিত নিজস্ব কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত নির্বাহী পরিষদের সভায় গৃহীত প্রস্তাবে এ অভিমত ব্যক্ত করা হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন বিএফইউজে সভাপতি এম আবদুল্লাহ। সঞ্চালনা করেন মহাসচিব নুরুল আমিন রোকন।

সভায় গৃহীত অপর এক প্রস্তাবে গণতন্ত্র ও ভোটাধিকার পুনরুদ্ধার এবং সুশাসন প্রতিষ্ঠার স্বার্থে শক্তিপ্রয়োগের পথ পরিহার করে পরমতসহিষ্ণুতা এবং সহাবস্থানের রাজনৈতিক পরিবেশ গড়ে তোলার বিষয়ে সকলকে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালনের আহবান জানিনো হয়েছে। দেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপি’র অফিস তছনছ, শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের মুরাল ভাংচুর এবং দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জামায়াতের আমীর ডা. শফিকুর রহমানসহ বহুসংখ্যক জাতীয় নেতা এবং কয়েকশ নেতা-কর্মীকে নির্বিচারে গ্রেফতারের নিন্দা জানিয়ে অবিলম্বে তাদের মুক্তি দাবি করা হয়েছে।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন ডিইউজে সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম, বিএফইউজের সহ-সভাপতি মোদাব্বের হোসেন, রাশিদুল ইসলাম ও ওবায়দুর রহমান শাহীন, সহকারি মহাসচিব নাসির আল মামুন ও শফিউল আলম দোলন, কোষাধ্যক্ষ মুহাম্মদ খায়রুল বাশার, দফতর সম্পাদক তোফায়েল হোসেন, প্রচার সম্পাদক মাহমুদ হাসান, নির্বাহী সদস্য এইচ এম আলাউদ্দিন, আবদুস সেলিম, জিয়াউর রহমান মধু, শামসুদ্দিন হারুন, এ কে এম মহসীন ও জাকির হোসেন, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি মো. মাহবুবুর রহমান, রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ড. সাদিকুল ইসলাম স্বপন, সাংবাদিক ইউনিয়ন যশোরের সাধারণ সম্পাদক আকরামুজ্জামান, সাংবাদিক ইউনিয়ন বগুড়ার সাধারণ সম্পাদক গণেশ দাস, সাংবাদিক ইউনিয়ন কক্সবাজারের সভাপতি জি এম আশেক উল্লাহ, কুমিল্লায় জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি রমিজ খান, সাংবাদিক ইউনিয়ন দিনাজপুরের সাধারণ সম্পাদক মাহফিজুল ইসলাম রিপন, সাংবাদিক ইউনিয়ন ময়মনসিংহের সভাপতি আইয়ুব আলী ও সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, সিলেট মেট্রোপলিটন সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক খালেদ আহমেদ ও সহসভাপতি এম এ কাদের তফাদার প্রমুখ।

সভায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে গৃহীত প্রস্তাবে বলা হয়, দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্ধ্বগতি এবং জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় দেশের মানুষের মধ্যে যে নাভিশ্বাস চলছে, তা থেকে মুক্ত নয় গণমাধ্যমকর্মীরা। এ অবস্থায় তাদের পেশাগত দায়িত্ব পালনেও নানা প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হতে হচ্ছে। একদিকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনসহ নানা কালাকানুনের খড়গ এবং অন্যদিকে মামলা-হামলার ভয়ে স্বাধীন সাংবাদিকতার পথ রুদ্ধ হয়ে আছে। এ পরিস্থিতির অবসানে সকল কালাকানুন বাতিল করে সুস্থ ও স্বাভাবিক সাংবাদিকতার পরিবেশ তৈরির আহবান জানানো হয়েছে।

সভার আরেক প্রস্তাবে বলা হয়, সংবিধান অনুযায়ী সবার মত প্রকাশের অধিকার রয়েছে। অথচ সংবিধান সংরক্ষণের শপথ নিয়ে সরকার প্রতিনিয়ত তা লংঘন করে চলেছে। একদিকে ক্ষমতাসীন দল ও তাদের সমর্থিতরা যখন খুশী, যেখানে খুশী নির্বিঘ্নে সভা-সমাবেশ করতে পারছে। পক্ষান্তরে সরকার বিরোধী মনে হলে শর্তের বেড়াজালে আটকে আর নানা অসদুপায়ে তাদের সভায় বাধা দেয়া হচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে রাজধানীতে একটি বৃহৎ রাজনৈতিক দলের সমাবেশ ঘিরে রাষ্ট্রযন্ত্র এবং ক্ষমতাসীন দলীয় নেতা-কর্মীরা যৌথভাবে মহড়া দিয়ে একটানা কয়েকদিন নাগরিক জীবনে যে অচলাবস্থা তৈরি করে রেখেছিলেন, তা গণতন্ত্রের জন্য কেবল অশনি সংকেত নয়, একটি খারাপ নজির হয়ে থাকবে বলেও সভায় অভিমত প্রকাশ করা হয়।
সভায় বিএফইউজের সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন এবং নির্যাতন -নিপীড়নের শিকার সারাদেশের সাংবাদিক ও হত্যার শিকার সাংবাদিক পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ঢাকায় একটি জাতীয় কনভেনশন করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

-প্রেস বিজ্ঞপ্তি

Print Friendly, PDF & Email