নরেন্দ্র মোদীরা কি পারবেন কাশ্মীর হজম করতে?


আবদুল হাফিজ খসরু: দলের সভাপতি অমিত শাহকে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এমনি এমনি বানাননি নরেন্দ্র মোদী। এরা দু’জনই দাঙ্গা কবলিত রাজ্য গুজরাটের বাসিন্দা। ২০০২ সালে আহমেদাবাদের মুসলিম বিরোধী দাঙ্গার অন্যতম প্রধান অভিযুক্তও এই দু’জন। এবারে বিজেপির নির্বাচনী এমন কিছু স্পর্শকাতর এজেন্ডা ছিল যা বাস্তবায়নে অমিত শাহর মত দলীয় প্রভাবশালী লোকটিকে লোকসভা ও মন্ত্রীসভায় দরকার ছিল মোদীর। যেমন মুসলিম নারীদের তিন তালাক আইন বিলুপ্তি, কাশ্মীরের স্বায়ত্বশাসন ধারা বিলোপ, আসাম ও পশ্চিমবঙ্গের নাগরিক পুঞ্জি (এনআরসি) তৈরি করে বাংলাদেশের উপর শরণার্থী চাপ সৃষ্টি, অযোধ্যায় বাবরী মসজিদের স্থলে রামমন্দির নির্মাণ, কংগ্রেসের মতো বৃহৎ দলকে নির্বাচনে কারচুপি করে হলেও দীর্ঘমেয়াদে ক্ষমতার বাইরে রাখার মাস্টারপ্লান বাস্তবায়ন প্রভৃতি।

ইসরাইলের কাছে নরেন্দ্র মোদী ও তার দল দিন দিন গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে। সম্প্রতি ইসরাইলের নির্বাচনী প্রচারণার একটি ছবি দেখলাম। সেখানে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, ফরাসী প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল মেক্রনের মত বিশ্বনেতাদের পাশাপাশি নরেন্দ্র মোদীর ছবিও শোভা পাচ্ছে তেলআবিবের রাস্তা-ঘাটে। ইহুদীবাদী ইসরাইল ও ব্রাহ্মণ্যবাদী ভারতের এই সামরিক, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক বন্ধন দক্ষিণ এশিয় অঞ্চলে যে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করেছে কাশ্মীরের সাম্প্রতিক ঘটনাবলী তারই চাক্ষুষ প্রমাণ। মোদীর এই দু:সাহসের অন্যতম নিয়ামক হচ্ছে ইসরাইল ও যুক্তরাষ্ট্রের ইসরাইলি লবি।

গত ৫ আগস্ট লোকসভায় ‘জম্মু ও কাশ্মীর পুনর্গঠন বিল ২০১৯’ পাশের মধ্য দিয়ে বিলুপ্ত হয়ে গেল ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ও ৩৫ (এ) ধারা। বিলুপ্তি ঘটলো কাশ্মীরের বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা। আরো বিলুপ্তি ঘটলো কাশ্মীরের ভারতীয় ইউনিয়নে যুক্ত থাকার শর্তও। এজন্যই নরেন্দ্র মোদীরা সেখানে সেনাসংখ্যা রাতারাতি বৃদ্ধি করলেন। যাতে বিক্ষুব্ধ কাশ্মীরি জনগণ তাৎক্ষণিকভাবে বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন শুরু করতে না পারে।

স্বাধীন কাশ্মীর রাজ্য আনুষ্ঠানিকভাবে ভারতীয় ইউনিয়নে যোগদান করেছিল ১৯৪৯ সালের ২৭ মে কাশ্মীরি গণপরিষদে পাশ হওয়া একটি বিলের মাধ্যমে। প্রস্তাব পেশ করার সময় বলা হয়েছিল যদিও ভারতভুক্তি সম্পন্ন হয়ে গেছে, তা সত্ত্বেও ভারতের তরফ থেকে প্রস্তাব দেওয়া হচ্ছে যে পরিস্থিতি তৈরি হলে গণভোট নেওয়া হবে এবং গণভোটে ভারতভুক্তি যদি গৃহীত না হয়, তাহলে “আমরা কাশ্মীরকে ভারত থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার পথে বাধা সৃষ্টি করবো না।“ এই বিলটি একই বছরের ১৭ অক্টোবর ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারায় সংযোজিত হয়। এই ধারা বলে জম্মু ও কাশ্মীরকে ভারতীয় সংবিধানের আওতামুক্ত রাখা হয় এবং ওই রাজ্যকে নিজস্ব সংবিধানের খসড়া তৈরির অনুমতি দেওয়া হয়। পররাষ্ট্র, প্রতিরক্ষা ছাড়া সর্বময় ক্ষমতা কাশ্মীরিদের দেয়া হয়। অলিখিত চুক্তি ছিল, যোগদানের সময়কালীন প্রতিশ্রুতি রক্ষিত না হলে, দু’ পক্ষই নিজেদের পূর্বতন অবস্থানে ফিরে যেতে পারবে।

কিন্তু কাশ্মীরে আর গণভোটও হয় না, সাত লক্ষ ভারতীয় সেনাও অপসারণ করা হয় না। সর্বশেষ দু’দিন আগে কাশ্মীর হারালো তার স্বায়ত্বশাসন। ভারত পূর্ণ করলো তার দখলের ষোলকলা। এই জনপদের কতিপয় নেতার টালবাহানার কারণে সোয়া কোটি কাশ্মিরী জনগণের জীবনে নেমে এলো সাময়িক অন্ধকার। নরেন্দ্র মোদীদের প্লান হলো, কাশ্মীরে এখন জনমিতি যুদ্ধ পরিচালিত করবে। সারা ভারতের হিন্দুত্ববাদী লোকজন দিয়ে সেখানে বসতি স্থাপন করাবে এবং মুসলমানদের সেখানে সংখ্যালঘুতে পরিণত করবে। ইসরাইল প্রথমদিকে যেভাবে ফিলিস্তিনীদের ভূমি ক্রয় করে বহিরাগত ইহুদীদের পুনর্বাসন শুরু করেছিল। ঠিক সেভাবেই ভারতীয় কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোকে দিয়ে হিন্দুত্ববাদী সংগঠনগুলো কাশ্মীরের ভূমি ক্রয় করাবে এবং একপর্যায়ে হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠ কাশ্মীর বানাবে। ভারতীয় সংবিধানের ৩৫ (এ) ধারা বলে এতদিন কাশ্মীরে যা কেউ পারতো না।

নরেন্দ্র মোদীকে এইভাবে দখলদারিত্ব বজায় রাখতে হলে জাতীয় অর্থনীতির বিশাল একটি অংশ এখন কাশ্মীরের জন্য বরাদ্দ রাখতে হবে। কাশ্মীর ফ্রন্টে অবস্থিত প্রায় দশ লক্ষ সেনা ও অস্ত্র-গোলাবারুদের বিশাল ব্যয়ভার বহন উদীয়মান অর্থনীতির এই দেশটির অগ্রগতি নিশ্চিত বাধাগ্রস্থ করবে। লক্ষাধিক কাশ্মীরি ইতিমধ্যে জীবন দিয়েছেন। অত্যাচার, নির্যাতন সহ্য করা তাদের নিকট এখন স্বাভাবিক বিষয়। যে জাতি তাদের শহীদদের জন্য কবর প্রস্তুত রাখে, যে প্রজন্ম আযাদীর স্লোগান দিতে দিতে বড় হয় তাদেরকে দমানো যায় না। কাশ্মীরে স্বাধীনতাকামী সংগঠনগুলোর সাথে এখন যোগ দিবে গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দলগুলোও। যারা এতদিন রাজনৈতিকভাবে সমাধান চাইতো তারাও সশস্ত্র হতে বাধ্য হবে। অনেক বেশী বিক্ষিপ্ত, চোরাগুপ্তা ও গেরিলা আক্রমণের শিকার হতে হবে ভারতীয় বাহিনীকে। শুধু কাশ্মীরে নয় সারা ভারতে ছড়িয়ে পড়তে পারে এই ধরণের চোরাগুপ্তা হামলা। বিমান ছিনতাই, রাজনৈতিক নেতাদের গুমের মত ঘটনাও ঘটতে পারে।

ইসরাইলের সক্ষমতার ধারে কাছেও নেই নরেন্দ্র মোদীর ভারতের। নিম্নমানের অস্ত্র ও প্রশিক্ষণের বিশাল সংখ্যক সেনা দিয়ে ইসরাইলী স্টাইলে কাশ্মীর দখলে রাখার দু:স্বপ্ন দেখছেন মোদী! দীর্ঘদিন কাশ্মীরকে দখলে রাখা ভারতের জন্য অসম্ভব হয়ে দাঁড়াবে। যেমন অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে এখন মার্কিনীদের আফগানিস্তানে টিকে থাকা । মুসলিম কাশ্মীরের আযাদী আসবেই। পরে লেজগুটিয়ে অপমানজনক বিদায়ের চেয়ে এখনই কাশ্মীরের স্বাধীনতা মেনে নেয়া মোদীর ভারতের জন্য সম্মানজনকই হবে। মি. মোদী, পাকিস্তানের সাথে একীভুত হয়ে যাওয়া কাশ্মীরের চেয়ে স্বাধীন সার্বভৌম কাশ্মীর ভারতের জন্য উত্তম নয় কী?

ভারতের উত্তর পূর্বাঞ্চলীয় ৭টি রাজ্যের ৫টিই এখন খৃস্টান সংখ্যাগরিষ্ঠ। এগুলোও কাশ্মীরের মত এতদিন বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা ভোগ করে আসছে। কাশ্মীরের এই ঘটনার পর রাজ্যগুলোর অস্বস্তি আরো বাড়বে। তাদের বিচ্ছিন্নতাবাদী সশস্ত্র গ্রুপগুলো আবারো মাথাছাড়া দিয়ে উঠতে পারে। এমনিতেই পশ্চিমাদের দীর্ঘদিনের শ্যোন দৃষ্টি রাজ্যগুলোর উপর। আমাদের পার্বত্য চট্টগ্রাম ও সেভেন সিস্টার্স খ্যাত ভারতের রাজ্যগুলোকে নিয়ে পৃথক স্বাধীন খৃস্টান রাষ্ট্র গড়ার মেকানিজম এগিয়ে রেখেছে তারা। এছাড়াও নরেন্দ্র মোদীকে আরো সামাল দিতে হবে অন্যান্য রাজ্যের স্বাধীনতাকামী সশস্ত্র মাওবাদী, দলিত ও শিখ সংগঠনগুলোকে।

নরেন্দ্র মোদী জাতিসংঘে কাশ্মীর ইস্যুতে কথাবার্তা হয়তো আটকাতে পারবেন। ওআইসির কাগুজে বাঘের হুংকারকে হয়তোবা সামাল দিতে পারবেন। কিন্তু চিরশত্রু চীন ও পাকিস্তানকে কিভাবে নিবৃত্ত করবেন ? যেখানে চীনের শ্যোন দৃষ্টি পড়ে রয়েছে অরুণাচল প্রদেশ ও আকসাই চীনের উপর। ইতিমধ্যে দু-দু’টি যুদ্ধে তারা জড়িয়েছে ! মধ্যপ্রাচ্য, মালয়েশিয়াসহ অনেকগুলো মুসলিম দেশে রয়েছে ভারতের প্রায় এক কোটি শ্রমিক। যাদের রেমিটেন্সে ভারতের অর্থনীতির চাকা ঘুরে। নরেন্দ্র মোদী কি মনে করছেন, এসব মুসলিম দেশের সুবিধাবাদ সরকারগুলো সবসময়েই তার পাশে থাকবে ?নরেন্দ্র মোদীরা কী পারবেন ভারতীয় আধিপত্যবাদী আচরণের কারণে সৃষ্ট তার প্রতিবেশী দেশগুলোর সাধারণ জনগণের তীব্র ঘৃণা নিয়ে বেঁচে থাকতে ?

নরেন্দ্র মোদীরা যদি মনে করেন যে, ইসরাইল ফিলিস্তিনে নিপীড়ন চালিয়ে দখলদারিত্ব বজায় রেখেছে-সদম্ভে টিকে আছে তো তারাও কাশ্মীরে তা পারবেন, তাহলে নিশ্চিত ভুল করবেন। ইসরাইল একই সাথে অনেকগুলো ফ্রন্টে যুদ্ধ পরিচালনা করতে সক্ষম। তাদের সেই সক্ষমতা আছে। তারা অস্ত্র বানায় ও রপ্তানি করে। স্বয়ং ভারতের সাথে ঘনিষ্টতার মূলে রয়ে ইসরাইলী অস্ত্র বিক্রির ব্যবসায়। ভারতকে অস্থীতিশীল করে রাখতে পারলে মার্কিন-ইসরাইলের অস্ত্র ব্যবসায় চাঙ্গা থাকবে। মার্কিন রাজনীতির শক্তিশালী নিয়ন্ত্রক হচ্ছে ইসরাইলী লবিস্টগ্রুপ। মার্কিন বিশাল নৌবহর তাদের রক্ষায় সর্বদা প্রস্তুুত থাকে। আশে পাশের মুসলিম দেশগুলোর দালাল শাসকদের সে হাত করে নিতে পেরেছে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে এই অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলে কোন বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনের অস্তিত্ব নেই, যা সামাল দিয়ে তাকে বহি:শত্রু মোকাবেলা করতে হবে। এরপরও হামাস ও হিজবুল্লাহর মত ছোট ছোট কিছু গেরিলা বাহিনীর কাছে নিয়মিতই নাকানি চুবানি খেতে হয় ইসরাইলকে।

ইসরাইলের সক্ষমতার ধারে কাছেও নেই নরেন্দ্র মোদীর ভারতের। নিম্নমানের অস্ত্র ও প্রশিক্ষণের বিশাল সংখ্যক সেনা দিয়ে ইসরাইলী স্টাইলে কাশ্মীর দখলে রাখার দু:স্বপ্ন দেখছেন মোদী! দীর্ঘদিন কাশ্মীরকে দখলে রাখা ভারতের জন্য অসম্ভব হয়ে দাঁড়াবে। যেমন অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে এখন মার্কিনীদের আফগানিস্তানে টিকে থাকা । মুসলিম কাশ্মীরের আযাদী আসবেই। পরে লেজগুটিয়ে অপমানজনক বিদায়ের চেয়ে এখনই কাশ্মীরের স্বাধীনতা মেনে নেয়া মোদীর ভারতের জন্য সম্মানজনকই হবে। মি. মোদী, পাকিস্তানের সাথে একীভুত হয়ে যাওয়া কাশ্মীরের চেয়ে স্বাধীন সার্বভৌম কাশ্মীর ভারতের জন্য উত্তম নয় কী?

লেখক :  সহযোগী সম্পাদক দেশনিউজ.নেট