• শুক্রবার, ১৯ জুলাই, ২০১৯

আমরা তো অ্যাকশন নিচ্ছিঃ বিএনপিকে সিইসি

CEC-3নিজস্ব প্রতিবেদক : ‘নির্বাচনের পরিবেশ নেই’— বিএনপির এমন দাবির পরিপ্রেক্ষিতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ বলেছেন, ‘আমরা ইতোমধ্যে অনেকগুলো ব্যবস্থা নিয়েছি। সংসদ সদস্যদের নির্বাচনী প্রচারণায় না যেতে বলেছি। যারা গেছেন তাদের শোকজও করেছি। অ্যাকশন তো নিচ্ছি।’

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় অফিস ত্যাগ করার সময় উপস্থিত সাংবাদিকের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এক কথা বলেন।
রকিবউদ্দীন বলেন, ‘তারা (বিএনপি) অভিযোগ করেছেন, অনেক জায়গায় মনোনয়নপত্র দাখিল করতে পারেননি। আমরা বলেছি, যারা মনোনয়নপত্র দাখিল করতে চেয়েছেন এবং সাহায্য চেয়েছেন তাদের সাহায্য করেছি। সে উদাহরণও দেওয়া হয়েছে, দাগনভূঞায় একজন প্রার্থী সাহায্য চেয়েছিলেন তাকে সাহায্য করা হয়েছে।’

‘উনাদের প্রার্থীরা কোনো ধরনের সমস্যায় পড়লে ব্যবস্থা নেব।’ যোগ করেন সিইসি।
তিনি বলেন, ‘তাদের আমরা আশ্বস্ত করেছি, আপনাদেরও বলছি, আইন মোতাবেক সুষ্ঠু নির্বাচন করব। কর্মকর্তাদের সবাইকে আইন মোতাবেক সিদ্ধান্ত দিতে বলেছি।’

সিইসি বলেন, ‘আগেও বলেছি, পুনর্বিবেচনার সুযোগ রয়েছে। কারোর মনোনয়নপত্র বাতিল হলে আপিল করার সুযোগ রয়েছে। আদালতেও যেতে পারবেন। চিন্তা করার বিষয় নয়।’ সিইসি বলেন, ‘সবাইকে সিদ্ধান্ত ও নির্দেশনা দিয়েছি, ‘সব কিছু আইন অনুযায়ী হবে। আইনের ব্যত্যয় ঘটবে না। আশা করছি, সব সুন্দরভাবে হবে।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. মঈন খানের নেতৃত্বে বিকাল চারটায় সিইসির সঙ্গে দেখা করেন। তারা সিইসির কাছে বেশ ‍কিছু অভিযোগ ও লিখিত প্রস্তাব দেন।
পরে মঈন খান সাংবাদিকদের বলেন, ‘মনোনয়নপত্র দাখিলের শুরু থেকে বিভিন্নভাবে বিএনপির নেতাকর্মীরা বাধার সম্মুখীন হয়েছেন। অনেকে প্রার্থী হতে পারেননি। নেতাকর্মীদের আটক করা হচ্ছে। এমন হলে তো নির্বাচনে সমসুযোগ থাকে না।’

এর আগে, প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে নির্বাচনী এলাকায় সেনা মোতায়েনসহ বিভিন্ন দাবি করে ন্যাশনাল পিপলস পার্টি (এনপিপি)।
আগামী ৩০ ডিসেম্বর ২৩৫টি পৌরসভায় ভোটগ্রহণ শুরু হবে। ১৩ ডিসেম্বর প্রত্যাহারের শেষ দিন। প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে ১৪ ডিসেম্বর।